খুলনা | রবিবার | ২১ জুলাই ২০২৪ | ৫ শ্রাবণ ১৪৩১

জিম্বাবুয়ে সিরিজের দলে খুলনারই চার ক্রিকেটার

আব্দুল্লাহ এম রুবেল |
০৫:৩০ পি.এম | ২৪ জুন ২০২১

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের আসন্ন জিম্বাবুয়ে সফরকে সামনে রেখে দল ঘোষণা করেছে বিসিবি। জিম্বাবুয়েতে টেস্ট, ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি তিন ফরমেটেই খেলবে বাংলাদেশ। আর তিন ফরমেটেই আলাদা আলাদা দল ঘোষণা করেছে বিসিবি। তিন ফরমেট মিলিয়ে দলে জায়গা করে নিয়েছেন খুলনার চার ক্রিকেটার। এরা হলেন স্পিন অল রাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ, শেখ মাহেদী হাসান, আফিফ হোসেন ধ্রুব ও নুরুল হাসান সোহান। এর মধ্যে নুরুল হাসান সোহান জায়গা করে নিয়েছেন তিন ফরমেটের দলেই। মেহেদী হাসান মিরাজ আছেন টেস্ট ও ওয়ানডে দলে। আর আফিফ হোসেন ধ্রুব আছেন ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলে। আর শেখ মাহেদী হাসান জায়গা করে নিয়েছেন টি-টোয়েন্টি দলে।  খুলনার এ চার ক্রিকেটারেরই এরই মধ্যে অভিষেক হয়ে গিয়েছে জাতীয় দলের জার্সিতে।
এই চার ক্রিকেটারের মধ্যে এখন সবথেকে অভিজ্ঞ মেহেদী হাসান মিরাজ। অনূর্ধ্ব-১৯ দল থেকে উঠে এসেছেন এই ক্রিকেটার। খুলনার খালিশপুরে জন্ম ও বেড়ে ওঠা এই ক্রিকেটার খেলেছেন খুলনার বিভিন্ন বয়স ভিত্তিক দলে। অনূর্ধ্ব-১৯ জাতীয় দলে তার হাত ধরেই সেমিফাইনালে ওঠে বাংলাদেশ। পরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠে নিজের অভিষেকটাও ছিলো দুর্দান্ত। ২০১৬ সালে টেস্ট অভিষেকের পর ২৬টি টেস্ট ম্যাচ, ৫০টি ওয়ানডে ও ১৩টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন এই ক্রিকেটার। অভিষেকের পর থেকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি মিরাজকে। অভিষেকের পর এখনও পর্যন্ত জাতীয় দল থেকে বাদ পড়েননি তিনি। তবে সাম্প্রতিক সময়ে টি-টোয়েন্টি দলের জন্য তাকে বিবেচনা না করলেও ওয়ানডে ও টেস্ট ক্রিকেটের জন্য অপরিহার্য হয়ে উঠছেন এই ক্রিকেটার। 
মিরাজের মতো সোহানেরও জাতীয় দলের হয়ে অভিষেক ২০১৬ সালে। তবে ভাগ্য সুপ্রসন্ন ছিলো না তার। তিন ফরমেটেই জাতীয় দলের জার্সি গায়ে পড়লেও কোন ফরমেটেই নিয়মিত হতে পারেননি। দেশসেরা উইকেট রক্ষকের তকমা তার নামের পাশে থাকলেও সুযোগ পাননি অধিকাংশ সময়। এবার আক্ষেপ দূর করার পালা খুলনার এই ক্রিকেটারের। মিরাজের মতো সোহানও খুলনার একেবারে লোকাল বয়। খুলনার দৌলতপুরে জন্ম ও সেখানেই বেড়ে ওঠা। খুলনার ক্লাসিক ক্রিকেট ক্লিনিক একাডেমীতে ক্রিকেটে হাতে খড়ি তার। কোচ মনোয়ার আলী মনুর হাত ধরে উঠে এসে খেলেছেন খুলনার বিভিন্ন বয়স ভিত্তিক দলে। জাতীয় ক্রিকেট লিগে খুলনার নেতৃত্বও তার হাতে। সাম্প্রতিক সময়ে ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে উইকেটের পিছনে, ব্যাট হাতে এবং নেতৃত্বে নজর কেড়েছেন। আর তাতেই তিন বছর পর আবারও সুযোগ মিললো জাতীয় দলে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ফরমেটের দলেই জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। 
জিম্বাবুয়ে সিরিজের টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে জায়গা পাওয়া খুলনার আরেক ক্রিকেটার শেখ মাহেদী হাসান। ওয়ানডে  টি-টোয়েন্টিতে এরই মধ্যে অভিষেক হয়েছে জাতীয় দলের জার্সিতে। ২০১৮ সালে টি-টোয়েন্টিতে আর চলতি বছর নিউজিল্যান্ডে ওয়ানডেতে অভিষেক হয় তার। তবে এবার ওয়ানডে দলে জায়গা হয়নি। জাতীয় দলের জার্সিতে এই বছর তিনটি ওয়ানডের পাশাপাশি ৭টি ওয়ানডে ম্যাচও খেলেছেন তিনি। শেখ মাহেদী হাসানও খুলনার বিভিন্ন বয়স ভিত্তিক দলে খেলেই উঠে এসেছেন। নুরুল হাসান সোহানের মতো শেখ মাহেদী হাসানেরও পথ চলা শুরু ক্লাসিক ক্রিকেট ক্লিনিকে। কোচ মনোয়ার আলী মনুর তত্বাবধায়নে জায়গা পেয়েছিলেন খুলনার বিভিন্ন বয়স ভিত্তিক দলে। সেখান থেকেই উঠে আসা তার। সম্প্রতি ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ টি-টোয়েন্টিতে দারুণ ব্যাটে নজর কাড়ছেন। দল ঘোষণার পরদিনই নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দিলেন মোহামেডানের বিপক্ষে দারুণ এক বিস্ফোরক ইনিংস খেলে। মোহামেডানের বিপক্ষে গাজী গ্রুপের হয়ে ৫৮ বলে করেন ৯২ রান। 
ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে জায়গা করে নিয়েছেন খুলনার আরেক ক্রিকেটার আফিফ হোসেন ধ্রুব। খুলনায় জন্ম হলেও আফিফ হোসেন ধ্রুব’র ক্রিকেট ক্যারিয়ার গড়ে ওঠে বিকেএসপিতে। বিভিন্ন বয়স ভিত্তিক দলে খেলেছেন বিকেএসপির হয়েই। যদিও বয়স ভিত্তিক অনূর্ধ্ব-১৪ দলে খেলেছিলেন খুলনার হয়ে। পরবর্তীতে খুলনা বিভাগের হয়ে জাতীয় দলেও খেলেছেন এই ক্রিকেটার। এরই মধ্যে জাতীয় দলের জার্সিতে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে খেলেছেন তিনি। শেখ মাহেদী হাসানের সাথে ২০১৮ সালে অভিষেক হয় টি-টোয়েন্টিতে। আর গত বছর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডেতে অভিষেক হয় তার। এখনও পর্যন্ত ৪টি ওয়ানডে ম্যাচের পাশাপাশি ১৫টি টি- টোয়েন্টি ম্যাচও খেলেছেন শেখ মাহেদী। এবার জিম্বাবুয়ে সিরিজেও আছেন দুই ফরমেটের দলেই।  

 

প্রিন্ট

আরও খবর